মানসিক স্বাস্থ্য পরিচয়

মানসিক স্বাস্থ্য কি?

মানসিক স্বাস্থ্য ঠিক শারীরিক স্বাস্থ্যের মতোই। শারীরিক সুস্থতার ক্ষেত্রে আপনি যখন সুস্বাস্থ্যের অধিকারী, তখন আপনার অনেক কর্মশক্তি থাকে এবং আপনি ভালো কাজ করতে পারেন। সেরকম , আপনি যখন মানসিক ভাবে সুস্থ, তখনও আপনি পূর্ণ উদ্যমে অনেক ভাল কাজ করতে পারেন।

মানসিক স্বাস্থ্য হলো আমাদের মন, আচরণগত ও আবেগপূর্ণ স্বাস্থ্যের দিকটি।আমরা কি চিন্তা করি, কি অনুভব করি এবং জীবনকে সামলাতে কিরকম ব্যবহার করি এগুলোই আসলে আমাদের মানসিক স্বাস্থ্য।একজন মানসিক ভাবে সুস্থ মানুষ নিজের সম্পর্কে ভালো ভাবে এবং কখনোই কিছু আবেগ যেমন রাগ, ভয়, হিংসা, অপরাধবোধ বা উদ্বেগ দ্বারা আবিষ্ট হবেনা।জীবনে যখন যেরকম চাহিদা আসে তা সামলে নেওয়ার ক্ষমতা তারা রাখে।

শারীরিক স্বাস্থ্যের মতোই যদি একজন বিভিন্ন নেতিবাচক আবেগ যেমন উদ্বেগ বা ভয় দ্বারা আবিষ্ট থাকে, তাহলে এই আবেগ গুলো তাকে মানসিক ভাবে অসুস্থ করে দিতে পারে এবং সঠিক সময়ে সাহায্য না নিলে এগুলি কিন্তু পরবর্তী কালে মানসিক অসুস্থতা হয়ে দাঁড়াবে যেমন ডিপ্রেশন বা বিষন্নতা বা জেনারেল অ্যাংজাইটি ডিসর্ডার বা সাধারণ উদ্বেগ ব্যাধি।

মনে রাখবেন ঠিক যেমন যে কারুর ঠান্ডা বা ফ্লু লাগতে পারে, তেমনি যে কেউ মানসিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়তে পারে যখন তাদের জীবনে কোনো চাপ বা উদ্বেগের মতো কঠিন সময় আসে।

মানসিক সুস্থতা কাকে বলে?

মানসিক সুস্থতা হলো যখন মানুষ নিজের সম্ভাব্য শক্তির জায়গা গুলি সহজেই বুঝে যায়, জীবনের নানা পর্যায়ের চাপের সাথে ভালো ভাবে মানিয়ে নিতে পারে, কর্মক্ষেত্রে ভালো ও ফলপ্রসূ ভাবে কাজ করতে পারে এবং সমাজের জন্য তার যথেষ্ট অবদান থাকে।

মানসিক চাপ কাকে বলে ?

আমাদের রোজকার জীবনে কিছু চাপ থাকেই।যখন আমাদের কোনো কাজের নির্দিষ্ট সময়সীমা বাধা থাকে তখন আমরা চাপ অনুভব করি, বা যখন মাসের শেষ পর্যন্ত চালানোর মতো পর্যাপ্ত অর্থ না থাকে তখন আমরা চাপ অনুভব করি।

 

যেমনি হোক, মানসিক চাপ আমাদের জন্য কখনো ভালো কখনো খারাপ হয়।

ভালো মানসিক চাপ

  • শক্তির বিস্ফোরণ ঘটায় (বিশেষত আমরা যখন ডেডলাইন থেকে পিছিয়ে পড়ি)
  • রোজকার নানা সমস্যা সামলাতে সাহায্য করে এবং আমাদের লক্ষ্যে পৌঁছাতে অনুপ্রেরণা জাগায়। 
  • আরো দক্ষ ভাবে কাজ শেষ করতে সাহায্য করে।

খারাপ মানসিক চাপ

যদি আমরা একই মানসিক চাপের মধ্যে সপ্তাহের পর সপ্তাহ বা মাসের পর মাস থাকি তাহলে তা আমাদের জন্য ক্ষতিকারক।:

  • মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে (বেশি সজাগ থাকা বা অত্যন্ত চিন্তা করার ফলে ভালো ঘুম না হওয়া)
  • শারীরিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে (রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতাকে দুর্বল করে দেয়)

কি করে বুঝবো যে আমার খুব বেশি মানসিক চাপ হচ্ছে কিনা ?

আমাদের শরীর আমাদের বলে দেবে যদি আমাদের খুব বেশি সংগ্রাম করতে হয় মানসিক চাপের সাথে।এই সতর্কীকরণ চিহ্ন গুলির দিকে নজর রাখবেন।:

শারীরিক

সবসময় মাথা ব্যাথা

শরীরে ব্যাথা বেদনা

ক্ষনে ক্ষনে অসুস্থ হয়ে পড়া

মানসিক

কোনো কাজে মনোযোগ দিতে বা শেষ করতে অসুবিধে হওয়া

সবসময় চিন্তার বিষয়গুলোকে নিয়ে ভেবে যাওয়া 

আবেগ

আশেপাশের সকলের জন্য ও সব জিনিসে বিরক্ত হওয়া

দ্রুত রেগে যাওয়া

স্বাভাবিকের থেকে বেশি উদ্বেগ থাকা